Realme C25S এর বাংলাদেশী দাম! কেমন হবে আপনার জন্য।


Realme C25S এর বাংলাদেশী দাম! কেমন হবে আপনার জন্য।

আজকে আমারা কথা বলবো Realme C25S এই ফোনটি নিয়ে।আপনারা প্রায় সকলেই জানেন যে  কিছুদিন আগে  বাংলাদেশের বাজারে Realme C25 ফোনটি লঞ্চ হয়েছিল। ঠিকতার একমাস পর Realme  বাজারে আনলো আবারও নতুন আর একটি স্মার্টফোন আর সেটি হচ্ছে RealmeC25S।আজ ২৬ শে জুন দুপুর ১২ টায় এক ইভেন্টের মাধ্যমে এই ফোনটি লঞ্চ করা হয়। এই ফোনটিমূলত লো বাজেটে্র গেমারদের জন্য টার্গেট করে  আনা হচ্ছে । এই ফোনে আপনারা পেয়ে যাচ্ছেন  MediaTek Helio G85 এরমত চিপসেট আর এছাড়াও পেয়ে  যাচ্ছেন ৬০০০ মিলিএমিয়ারের একটি বিশাল ব্যাটারি। সো সবকিছু মিলিয়ে আপনার জন্য  এই ফোনটি কেমন হবে এবং এর প্রাইস বাংলাদেশের মুল্য কত হতে পারে। ফোনটির সম্পূর্ণ স্পেশিফিকেশন সম্পর্কে জানতে এই  পোষ্টটি পড়তে থাকুন।

প্রথমেই কথা বলা যাক এই ফোনের ডিজাইন এবং বিল্ড কোয়ালিটি নিয়ে ফোনের ব্যাক সাইডে এবং ফ্রেমে পেয়ে  যাচ্ছেন প্লাষ্টিক বডি। আর ব্যাকসাইডের উপরের অংশে পেয়ে যাচ্ছেন একটি স্কোয়ার সার্কেলের মধ্য  পেয়ে যাচ্ছেন ত্রিপল ক্যমেরা বা তিনটি ক্যামেরা এবং সঙ্গে থাকছে এল.ই.ডি ফ্ল্যাশ এবং ঠিকতার নিচে পেয়ে যাচ্ছেন ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর যা মোটামোটি ফার্স্ট এবং ঠিকভাবে কাজকরছিল।ফোনের ব্যাকে সাইডের  নিচের দিকে দেখতে পাবেন Realme এর  ব্রান্ডিং যা খুব বড় করেই দেওয়া আছে।ব্যাকসাইডের আসলে দেখতে পাওয়া যাবে সাইনরাইজ এফেক্টেরমত যা দেখতে আরও প্রিমিয়াম কোয়ালিটি লাগছিল। ফোনটির ডান সাইডে পেয়ে যাচ্ছেন"পাওয়ার" বাটন এবং ভলিয়ম আপ ডাউন বাটন।  আর উপরের দিকে কিছু থাকছে না একদম ফাকা রাখা হয়েছে। আর ফোনটির বাম সাইডে পাচ্ছেন ডেডিকেটেড  সিম কার্ড এবং একটি মেমরিকার্ড এর স্লট।

 যেখানে আপনি দুইটি সিম কার্ড এবং একটি মেমরিকার্ড ব্যাবহার করতে পারবেন। আর ফোনটির নিচের দিকে আসলে আপনারা পেয়ে যাচ্ছেন 3.5 Milimitere এর একটি হেডফোন জ্যাক এবং মাইক্রোফোন স্লট, নয়েজ ক্যান্সলেশন স্লট এবং টাইপ সি স্লট এবং স্প্লিকার বিল্ড।  ফোনটির সামনে আসলে  আপনারা পেয়ে যাচ্ছেন 6.5 Inches একটি এইচ ডি প্লাস ডিসপ্লে । যার মাঝ বরাবর ইউ সেপ বা  ওয়াটার ড্রপের মাধ্যমে বসানো হয়েছে সেলফী ক্যামেরাটি। তবে যদি পান্সোল ক্যামেরাটি বসানো থাকতো তাহলে ডিজাইনটি   দেখতে আরও ভালো  লাগতো। ফোনটির Thikness করা হয়েছে 9.6 Milimitere আর ফোনটির ওজন করা হয়েছে ২০৯ গ্রাম।  ফোনটি এত ওজন হওয়ার কারণ হছে এই  Huge ব্যাটারি।

ফোনটিতে থাকছে দুইটি কালারের আর সেগুলো হচ্ছে  Water Blue এবং Water Gray .

এবারে কথা  বলা যাক এই ফোনটির ডিসপ্লে নিয়ে ফোনটিতে পেইয়ে যাচ্ছেন 6.5 Inches IPS LCD Panel যেখানে থাকছে ৪৮০ Needs টাইপ ব্রাইটনেস এর এটি কিন্তু একটি HD+ Display যার রেজুলেশন হচ্ছে ৭২০ বাই ১৬০০ পিক্সেল।আর ফোনটির স্ক্রিন রেশিও হচ্ছে ৮১.৭% এছড়াও পাচ্ছেন ২৭০ PPI ডেনসিটি । এই ফোনের ডিসপ্লে এইচডি প্লাস হওয়ায় সারপেন এর কিছু ঘাটতি থাকতে পারে।

এবার কথা বলা যাক ফোনটির সফটওয়্যার এবং পারফরম্যান্স নিয়ে। আপনারা  এই ফোনের সফটওয়্যার হিসাবে পেয়ে   যাচ্ছেন Android 11 যার ব্যাকএন্ডে  থাকছে Realme 2.0  আর শুরুতেই আমি বলেছি এর চিপসেট এর কথা । এর চিপসেট হিসাবে রয়েছে MediaTek Helio G85  যা  ১২ ন্যানোমিটারে তৈরি  করা একটি Octacore প্রসেসর। আর ফোনোটিতে  জিপিউ হিসাবে পেয়ে যাচ্ছেন Mali-G52MC2 

ভিউয়ারস আপনারা অনেকেই জানেন যে MediaTek Helio G85 প্রসেসরটি গেমিং এর জন্য ভালো । মোটামোটি যেকোন নর্মাল এবং মিডিয়াম গেমগুলো  খুব ইজিলি হাই সেটিংসে খেলা যাবে এই ফোনটিতে । আর যদি আপনি হাই বা আলট্রা হাই দিয়ে গেম প্লে করেন তবে এতে করে  কিছু ল্যাগি ল্যাগি এবং ফ্রেমড্রপ লক্ষ করবেন।সাজেশন রইলো মিডিয়াম সেটিংস দিয়ে গেম প্লে করা। এক্ষত্রে আপনারা স্মুথ এক্সপিরিয়েন্স পেয়ে যাবেন। আর মাল্টিটাস্কিং এবং অন্যন্য কাজ খুব সুন্দরভাবেই করতে পারবেন। ফোনটি দুইটি ভেরিয়েন্টে পাওয়া যাবে আর সেগুলো হচ্ছে ৪ জিবি র‍্যাম এবং ৬৪ জিবি রোম যার অফিশিয়াল প্রাইস থাকছে ১৪,৪৯০ টাকা এবং পরবর্তী ভেরিয়েন্টে পাচ্ছেন ৪ জিবি র‍্যাম এবং ১২৮ জিবি রোম যার   অফিশিয়াল প্রাইস  থাকছে ১৫,৪৯০ টাকা । 

এবার কথা বলা যাক ফোনটির ক্যামেরা সম্পর্কে এই ফোনটির র‍্যায়ারে আপনারা পেয়ে যাচ্ছেন থ্রি ক্যামেরা সেটাপ যার মেইন সেন্সর হিসাবে থাকছে ৪৮ মেগাপিক্সেল এই ওয়াইড সেন্সর এবং ২মেগাপিক্সেলের  ম্যাক্রো এবং  সবার শেষে থাকছে ২ মেগাপিক্সলের ডেপথ সেন্সর। ফোনটির ব্যাক ক্যামেরা ফিচার হিসাবে পেয়ে যাচ্ছেন এল.ই.ডি  ফ্ল্যাশ এইচডি আর প্যনারোমা,। আর ব্যাকক্যামেরা দিয়ে সর্বোচ্চ ১০৮০পি তে ৬০ এফ.পি তে  ভিডিও শুট করতে পাচ্ছেন। আর এই ফোনটির সামনের ক্য্যমেরায় পাচ্ছেন ৮ মেগাপিক্সেলের  একটি ওয়াইড সেন্সর ক্যামেরা ফিচার হিসাবে পেয়ে যাচ্ছেন  এইচডি আর প্যনারোমা। আর সেলফিক্যামেরা দিয়ে  ১০৮০পি তে ৩০ এফ.পি তে  ভিডিও শুট করতে পাচ্ছেন। 

এবার এই ফোনটির ব্যাটারি নিয়ে কথা বলি। এই ফোনটির ব্যাটারি হিসাবে পেয়ে যাচ্ছেন  ৬০০০ মিলি এম্পিয়ারের একটি হিউজ ব্যাটারি । যা একজন নর্মাল ইউজারের কাছে অনায়াসে  ১ থেকে ২ দিন চলে যাবে । আর যারা গেমিং করবেন তারাও ভালো ব্যাটারি ব্যাকআপ পাবেন। আর ফোনে চার্জ করার জন্য থাকছে ১৮ ওয়াটের একটি ফার্স্ট চার্জার। 

এখন কথা বলা যাক এই ফোনটি আপনার জন্য কেমন হবে্‌ বন্ধুরা এই ফোনে একটি মোটামোটি লেভেলের একটি চিপসেট ব্যবহার করা হয়েছে  যা গেমিং বা অন্যান্য কাজ করার জন্য  ভালো। তাছাড়াও এই ফোনে ৬০০০ MAH ব্যাটারি এবং ১৮ ওয়াটের একটি ফার্স্ট চারজার পাচ্ছেন। আপনার বাজেট যদি ১৫ হাজার থেকে  ১৬ হাজার হয়ে থাকে তাহলে এই ফোনটি নিতে পারেন।  তবে এই  ফোনটির দাম আর একটু কম হলে ভালো হত।

ধন্যবাদ এই পোষ্টটি পড়ার জন্য।

Post a Comment

নবীনতর পূর্বতন